বিকাশ
যদি বিকাশ একাউন্ট ডিলিট করার সঠিক নিয়ম জানতে চান তাহলে এই পোষ্ট আপনার জন্য।

বিকাশ একাউন্ট ডিলিট করা কঠিন নয়!বরং খুব সহজ কাজ।

আজ আমি আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বলবো যে,কিভাবে বিকাশ একাউন্ট ডিলিট করবেন?

বিকাশ একাউন্ট ডিলিট করার নিয়ম


সময়টা ছিলো ২০১৯

নতুন সিম ক্রয় করায় পুরাতন সিমের বিকাশ একাউন্ট পারমানেন্ট  বন্ধ করার প্রয়োজন পড়ে।

অনেক ভেবে-চিন্তে কল করলাম Bkash হেল্পলাইনে (১৬২৪৭)

তারা আমাকে,

  1. যে ভোটার আইডি কার্ড (NID) দিয়ে একাউন্ট করেছিলাম সেই NID অথবা তার ফটোকপি সঙ্গে করে বিকাশ কাষ্টমার কেয়ারে যেতে বললো।  
  2. বিকাশ একাউন্ট এর ব্যালেন্স ০.০০   টাকা করতে বললো।

আমিও তাদের কথা মতো তাই করলাম।

রওনা হলাম কাষ্টমার কেয়ারের উদ্দেশ্যে।

অবশেষে আল্লাহর রহমতে পৌঁছে গেলাম কাস্টমার কেয়ারে।

যখনই কাষ্টমার কেয়ারে প্রবেশ করবো,তখনই দাড়োয়ান বাধা দিলো।

কারন আমার মুখে মাস্ক ছিলো না!😂

তাই পাশের এক দোকানে মাস্ক এর দাম জিজ্ঞেস করাতে সে বললো, ১০টাকা😇

আমি কম কিসে?অনেক দামাদামি করে ৫টাকায় কিনে নিলাম😉

তারপর ভেতরে প্রবেশ করলাম।আমার সিম ভেরিফিকেশন করলো এবং একটি টোকেন দিলো।

 একটি টোকেন নাম্বার দিয়ে অপেক্ষা করতে বললো।

আমার টোকেন নাম্বার ধরে আমাকে ডাকা হলো।

আমি আমার সমস্যার কথা বললাম।আমার ভোটার আইডি কার্ড চাইল আমি দিলাম।

আরো কিছু তথ্য জানতে চাইল আমি সব বললাম।

অতঃপর আমার  বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করে দিলো।

সবশেষে,

আমাকে একটি চাবির রাখার e (চাবির ছড়া) দেয়া হলো।😁🤣

 ভিডিওঃ 



আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন।কিছু না বুঝলে কমেন্ট করুন।

আমার জন্য দোয়া করবেন যেন ভবিষ্যতে আরো কিছু অভিজ্ঞতা আপনাদের মাঝে শেয়ার করতে পারি।

খোদা হাফেজ 

  

  


বিঃদ্রঃ এই ব্লগে বিভিন্ন কনটেন্ট,ভিডিও ও ছবি বিভিন্ন ওয়েবসাইট/বই থেকে নেওয়া হতে পারে।আমরা আপনার মূল্যবান কনটেন্ট,অন্যের উপকারের লক্ষে শেয়ার করে থাকি।তবে আপনার যদি কোনও আপত্তি থাকে,তাহলে আমাদের কাছে অভিযোগ করুন।আপনার কনটেন্ট সরিয়ে ফেলা হবে।