অল্প সময়ে পরীক্ষায় ভালো করার উপায়

তুমি কি অল্প সময়ে পরীক্ষায় ভালো করার উপায় খুজছো?

যেমনটা আমার মতো😂 আমিও তোমার মতো অল্প সময়ে পরীক্ষায় ভালো করার উপায় খোজা ছাত্র!

বছর জুরে Free fire,Pubg,Mini militia,Facebook,YouTube ইত্যাদি করে সময় কাটিয়ে দিয়েছ?

যেমনটা আমার মতো!😥

পরীক্ষা আর মাত্র ১ মাস বাকি?

ভয় নেই দাদা!ভয় নেই! আজ আমি এমন কিছু ট্রিক শেয়ার করবো যা ব্যবহার করে তুমি তোমার সব বিপদ কাটাতে পারো।

তাই মনোযোগ সহকারে শুরু থেকে শেষ পযন্ত পড়ো।শুধু পড়লেই হবে না ট্রিকগুলো কাজেও খাটাতে হবে।😍

অল্প সময়ে পরীক্ষায় ভালো করার উপায়


👉বিসমিল্লাহ বলে শুরু

বন্ধুগন যেহেতু আমরা অল্প সময়ে ভালো ফলাফল আশা করছি তাই আমাদের উচিৎ বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম বলে শুরু করা।
আল্লাহর কাছে বেশি বেশি চাইতে হবে আমাদের।
দোয়ার মাধ্যমে ভাগ্য পরিবর্তন হয়।দোয়া কবুল হলে কিভাবে যে তুমি ভালো রেজাল্ট করবা তা তুমি নিজেও বুঝতে পারবে না।
আছরের নামাজ পড়ে মোনাজাত তুলে আল্লাহর কাছে চাইতে হবে।
আমি শুনেছি যে,দিনের আছরের পর দোয়া করলে কবুল হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। 

👉 বেছে বেছে পড়ো


যেহেতু আমাদের হাতে সময় খুব কম তাই আমাদের বেছে বেছে পড়তে হবে।

বইয়ের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ে শেষ করতে পারবে না।দেখা গেল তুমি তোমার ১টা সাবজেক্ট প্রথম পৃষ্ঠা থেকে শেষ পৃষ্ঠা পযন্ত ১০ দিন ব্যয় করে ফেললে! এক্ষেত্রে বাকি রইলো ২০ দিন😲

এরকম করা যাবে না😉 গুরুত্বপূর্ণ যেগুলো পরীক্ষায় আসতে পারে সেগুলোই পড়তে হবে। 

সবচেয়ে ভালো হয়, বোর্ড প্রশ্ন অনুসরণ করা।৫-৭টি সাল সম্পর্ন করতে পারলে অল্প সময়ে প্রচুর জ্ঞান সংগ্রহ করতে পারবে।

পাশাপাশি পরীক্ষায় কেমন প্রশ্ন আসবে,প্রশ্নের ধরন বুঝতে পারবে।

আসল কথা হলো, বইতে বিস্তারিত লেখা থাকে যা পড়ার সময় আমাদের হাতে নেই তাই সরাসরি পড়লে ভালো হয়।

বোর্ড প্রশ্ন-উত্তরকে প্রধান্য দিতে হবে।

👉সকালে ঘুম থেকে উঠা

অল্প সময়ে পরীক্ষায় ভালো করার সহজ ৭টি উপায় | গোপন টেকনিক
সকালে ঘুম থেকে উঠা যদিও কষ্টকর!

তবে কিছু ট্রিক অবলম্বন করলে সহজেই সকালে ঘুম থেকে উঠা যায়।

সকালে ঘুম থেকে উঠতে আমরা সবাই চাই কিন্তু পারি না।

যখন সকাল হয় তখন ঘুম থেকে উঠবো ভাবার সাথে সাথে ব্রেন চিৎকার করে বলে উঠে,আর মাত্র ৫ মিনিট 😊

৫ মিনিট বলতে বলতে সকাল ১০টায় গিয়ে পৌঁছায়😥।

সকালে ঘুমালে রাতের বেলা পড়তে মন চায় না।

তখন বিনোদনের অভাব দেখা দেয়।ফলে সাথে সাথেই ইউটিউব ফেসবুক উঁকি দিয়ে বলে 'এই যে আমি'😥

এভাবেই রাত ১২টা বেজে যায়।এভাবেই দিনের পর দিন কেটে যায়।

এক পর্যায়ে গুগলে অল্প সময়ে পরীক্ষায় ভালো করার উপায় খুজতে খুজতে আমার ব্লগে এসে পৌঁছাও।😉

বৈজ্ঞানিকভাবে সকালে ঘুম থেকে উঠলে শরীরের অনেক উপকার হয়।

ফজরের নামাজ পড়া শেষ করে এক কাপ চা হাতে নিয়ে টেবিলে বসতে হবে।

অন্তত ৮-৯টা পর্যন্ত পড়লেই যথেষ্ট।

এ সময়ে আমাদের মতো অন্য বন্ধুরাও আরামের সহিত ঘুমন্ত থাকে।

তাই তারা তখন তোমার বাসায় কলিং বেল চেপে বলবেও না 'রাসেল,পাবজি খেলবি?'

কেউই বিরক্ত করবে না।সকালে ব্রেন ফ্রেশ থাকে তাই মাথায় যাই-ই দিবেন তাই-ই নিয়ে নিবে।😍

সকালে ঘুম থেকে উঠার ট্রিকঃ

আগের দিন রাতে পরিকল্পনা করতে হবে যে,যখন এলাম বাজবে তখনই এক লাফে ঘুম থেকে উঠবো।

সেকেন্ড দেরি করা যাবে না।এমনকি আড়মোড়া ছাড়া যাবে না।
এই পদ্ধতি খুবই কাজের!ব্যবহার করে দেখতে পারেন।  

👉মোবাইল ও ফ্রেন্ডকে ম্যানেজ করো

পরীক্ষায় ভালো করার টেকনিক
যদি তুমি তোমার মোবাইল ফোন ব্যবহার না করার সিদ্ধান্ত নাও তাহলে ব্যাপক ভুল সিদ্ধান্ত হবে।

তুমি হয়তো,দু-এক দিন ফোন না টিপে থাকতে পারবে কিন্তু  তারপরের দিন ঠিকই ইউজ করবে।

মোবাইলকে তালাবন্ধি করে যতই পড়ার টেবিলে বসো না কেন তোমার মন ওই মোবাইলের উপরই থাকবে।

এতে পড়ালেখার ব্যপক মনোযোগ নষ্ট হবে।

তুমি চাইলে প্রতিদিন আছরের নামাজের পর থেকে মাগরীব পযন্ত  মোবাইল ফোনকে টাইম দিতে পারো

যদি পারো ১মাসের জন্য ফোনকে তালাবন্ধি করো।

অন্যদিকে ভাই-ব্রাদার,বন্ধু-বান্ধবকেও আছরের পর সময় দিতে পারো।

অবশ্যই মাগরিব এর নামাজ আদায় করবে।বন্ধুদেরকে বলা যেতে পারে,আমি মাগরিব নামাজ আদায় করতে যাবো,চাইলে তোমরাও যেতে পারো। 

মূলকথা হলো,মোবাইল,বন্ধু-বান্ধব এর পেছনে দিনের অধিকাংশ সময় ব্যয় হয়।

এই দুটোকে যদি ম্যানেজ করতে পারো তাহলে সফলতা বেশি দূর নেই।

👉না বলতে শিখো


যদি মা-বাবা আমাদের কিছু করতে বলে তখন আমরা বলি 'পারবো না'😥
কিন্তু সফিক এসে যদি বলে 'এই তাকিজ,পাবজি খেলবি?'
সেক্ষেত্রে আমরা না বলতেই পারি না।
বরং আমরা না চাইলেও না বলতে পারি না।এ অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে।
জীবনে হ্যা-না অনেক গুরুত্বপূূর্ণ।অনেক ভেবে-চিন্তে তারপরই হ্যাঁ অথবা না বলতে হবে।
তবে একেবারে 'না'  না বলেও আপনি এভাবে উত্তর দিতে পারেন ' পাবজি খেলবো আছরের নামাজের পর' 
এতে সরাসরি না বলা প্রয়োজন হলো না।কিন্তু ঘুরে ফিরে না বলাই হলো।   


👉কঠিন নয়,সহজ ভাবো

সবকিছুকে কঠিন ভাবা আমাদের বদঅভ্যাসে পরিনত হয়েছে।যা কিছু করতে যাই তাতেই ভয় পাই।

দুষ্ট মন বলে উঠে,তোর দ্বারা এসব সম্ভব না।এই বদ অভ্যাসটি আমাদের মাঝে ব্যপক হারে দেখা যায়।

অতিদ্রুত অভ্যাসটি ত্যাগ করতে হবে।ছোট সময় একটি গল্প পড়েছিলেন হয়তো,খরগোশ এবং কচ্ছপ এর।

এই গল্প থেকে শিক্ষা নেয়া উচিৎ।আমি কম পারি তাতে কি হয়েছে?আমার দ্বারাও সম্ভব!

প্রকৃত অর্থে, অনেকের মাঝে অনেক জ্ঞান কয়জন সঠিকভাবে তাদের জ্ঞান কাজে খাটায়?

হাতে গোনা অল্প লোকই তাদের সঠিক জ্ঞান কাজে লাগায়।

কোনো কাজকে কঠিন না ভেবে বিসমিল্লাহ বলে শুরু করে দিবে।

দেখবে সহজেই সম্পর্ন করে ফেলেছ।😍😍

👉NEVER GIVE UP

পরীক্ষায় ভালো করার পদ্ধতি

তুুমি যদি Wwe Wrestling পছন্দ কর তাহলে John cina নামক Wrestler কে চিনে থাকবে।

তার প্রায় খেলায় সে একটি মেসেজ দেয় যে,Never give up যার বাংলা অর্থ হলো - কখনো হাল ছেড়ে দিও না 

উপরের ৬টি টিপস দু-এক দিন মেনে চলে পরের দিন হাল ছেড়ে দিলে চলবে না।

এই বাক্যেটি মাথায় রেখে এগিয়ে যেতে হবে লক্ষ্যের দিকে।

উপসংহারঃ

তুমি এই পোষ্টটি পড়েছ মানে এই নয় যে তুমি সফল হয়ে গেছো।
তুমি কাজে কর্মে কতটুকু করতে পারছো এটাই বড় কথা।
টাকার মেয়াদ ২৪ ঘন্টা,আমার এই পোষ্টের মেয়াদ যে কত ঘন্টা তা আমি নিজেও জানি না।

আমার মাথায় যতটুকু ছিলো তা ঢেলে দিয়েছি,তোমার মাথায় যদি অল্প সময়ে পরীক্ষায় ভালো করার উপায় আরো জানা থাকে তাহলে কমেন্টে ঢেলে দাও😉

ভিডিও 👇



বিঃদ্রঃ এই ব্লগে বিভিন্ন কনটেন্ট,ভিডিও ও ছবি বিভিন্ন ওয়েবসাইট/বই থেকে নেওয়া হতে পারে।আমরা আপনার মূল্যবান কনটেন্ট,অন্যের উপকারের লক্ষে শেয়ার করে থাকি।তবে আপনার যদি কোনও আপত্তি থাকে,তাহলে আমাদের কাছে অভিযোগ করুন।আপনার কনটেন্ট সরিয়ে ফেলা হবে।